ঢাকা রবিবার, সেপ্টেম্বর ২৫, ২০২২

পর্যটকদের আস্থা অর্জন করেছে তামাবিল স্থল বন্দর

  বাংলাদেশের পর্যটন বান্ধব ইমিগ্রেশন ব্যাবস্থাপনা নিয়ে অভিযোগের শেষ নেই যেখানে।তামাবিল স্থল বন্দর সেখানে দেশি বিদেশী পর্যটকদের আস্থা অর্জন করেছে।
কোন প্রকার নাস্তানাবুদ ছাড়া বা দালালদের দৌরত্ম ছাড়াই বাংলাদেশ থেকে ভারতের মেঘালয় ও আসাম রাজ্যে ঘুরে আশা যায় খুব কম খরচে।অপর দিকে ভারতীয় নাগরিকদের প্রশংসা পেয়েছে এই স্থল বন্দর।যদিও বেনাপল ও ভুরিমাড়ি স্থল বন্দর অপেক্ষা এই তামাবিল স্থল বন্দরে পর্যটকের আসা যাওয়া সংখ্যা কিছুটা কম।তবুও এর মাঝে পর্যটকদের সুনাম কুড়িয়েছে তামাবিল স্থল বন্দর ইমিগ্রেশন পুলিশ ও শুল্ক বিভাগ।পাশাপাশি বন্দর কর্তৃপক্ষের সেবা দেবার মনোভাব পরিলক্ষিত হ্যেছে।তাই ভ্রমণ পিয়াসীদের জন্যে ভারত ভ্রমণে তামাবিল স্থল বন্দর হয়ে ভারতের ঢাউকি বন্দর দিয়ে খুব সহজে হবে ভ্রমন।যা কিনা মনে করিয়ে দেবে বেনাপলের আর ভুরিমাড়ি বন্দরের যন্ত্রনা।
দল বেধে ৪ জন কিংবা ৮ জনের দল নিয়ে তামাবিল দিয়ে মেঘালয়ের শিলং আর আসামের গৌহাটি ভ্রমণ হতে পারে বাজেট ট্যুরের এক চমৎকার আয়োজন।তবে হা শিলং এ হোটেল বুকিং টা আগে করে গেলে খুব ভাল।না হয় বিড়ম্বনায় পড়তে হবে কিছুটা।খাওয়া দাওয়ায় একটু ভেজিটারিয়ান মনোভাব নিয়ে গেলে মন্দ নয়।শিলং বেড়ানোর উৎকৃষ্ট সময় এখন। পাহাড়ি ঝর্নার অপরূপ শোভা দেখতে শিলং আপনাকে মনে করিয়ে দেবে আপনার আর কানাডা নায়গ্রা না দেখার কষ্ট ভুলিয়ে দেবে।পাহাড়ী রাস্তায় ভ্রমণ আপনাকে দেবে আর এক আদ্ভেঞ্ছার।প্রতিটি বাঁকে বাঁকে আপনি পাবেন থ্রিল।তাই আমাদের মধ্যেবিত্তের ভারত ভ্রমনে তামাবিল স্থল বন্দর আমাদের দিবে এক সুখকর ভ্রমণের স্বাদ।